বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রী ও কথিত প্রেমিকের যাবজ্জীবন

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রী ও তার কথিত প্রেমিককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

রবিবার বিকেলে দিনাজপুর সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আজিজ আহমদ ভুঞা এই রায় প্রদান করেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার ভবানীপুর (ঘাসিপাড়া) এলাকার মৃত মজিদ প্রামানিকের মেয়ে ফাহমিনা বেগম (৪৩) ও তার বিবাহবহির্ভূত অবৈধ প্রেমিক ও কথিত ধর্মভাই একই উপজেলার নিয়ামতপুর নতুনবাজার এলাকার সুশিল রবিদাসের ছেলে মানিক রবিদাস ওরফে আর্ট মানিক (৪৫)। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৫ সালের ২৫ অক্টোবর সকালে জেলার পার্বতীপুর উপজেলা শহরের মোজাফফর হোসেন মহল্লার বাসিন্দা মুদি ব্যবসায়ী আবু ছালাম মোল্লার মরদেহ নিজ ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় নিহতের বড়ভাই আবু হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে পার্বতীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত চলাকালে আসামি ফাহমিনা বেগম স্বেচ্ছায় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। 

তিনি উল্লেখ করেন যে তার স্বামী মৃত আব্দুল ছালাম মোল্লা তাকে ও তার ধর্মভাই মানিক রবি দাসকে নিয়ে সন্দেহ করে এবং প্রথমে জমি লিখে দিতে চাইলেও পরে জমি লিখে দেয়নি। এই ক্ষোভে ঘটনার দিন ভোর ৪টায় ফাহমিনা বেগম মোবাইল ফোনে মানিক রবি দাসকে ডেকে আনে। পরে দুজনে মিলে নাইলনের রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আবু ছালাম মোল্লাকে হত্যা করে। পরে মরদেহ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেয়। মামলা দায়েরের পর পুলিশ নিহতের স্ত্রী ফাহমিনা বেগম ও মানিক রবি দাসের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে।

এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ২১ জন স্বাক্ষী স্বাক্ষ্য প্রদান করেন। এ ছাড়াও আসামি ফাহমিনা বেগম নিজেই সাফাই সাক্ষী প্রদান করেন। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট রবিউল ইসলাম ও আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট হযরত আলী বেলাল।

দিনাজপুর আদালত পুলিশ পরিদর্শক মনিরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email