রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে পালিত হলো উরাওঁদের ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব

মোঃ নুর ইসলাম, দিনাজপুর ॥ লাল হলুদ শাড়ী আর খোপায় ফুল রঙ্গিন সাজে বাদ্যের তালে নেচে গেয়ে ক্ষুদৃ নৃগোষ্টীর উরাওঁদের সম্প্রদায় উদযাপন করে তাদের বড় পরব কারাম উৎসব। দিনাজপুরের সুইহারী খালপাড়ায় আদীবাসি পল্লীতে সারারাত চলে এ উৎসব। অপসংস্কৃতির বেড়াজাল থেকে বের হয়ে নিজেদেও ঐতিহ্য মেলে ধরতে এ আয়োজন।
সকাল থেকে নেচে গিয়ে আসতে শুরু করে ক্ষুদ্র-নৃগোষ্টীর নারী পুরুষ মাদল আর মন্দিরার শব্দে সাথে দলবদ্ধ পথনৃত্য। ক্ষুদ্র-নৃগোষ্টীর নিজস্ব ভাষায় গাওয়া গান আর ছন্দময় নাচে অংশ নেয় তরুন তরুনী আর আবাল বৃদ্ধরা। সমতল ভুমির ক্ষুদ্র-নৃগোষ্টীর বিভিন্ন জাতিসত্বা নেচে গেয়ে নিজস্ব সংস্কৃতি তুলে ধরেন তাদের ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতকে। বৈচত্রপুর্ন এ অনুষ্টান উপভোগ করতে ঢল নামে নানা পেশার মানুষদের ক্ষুদ্র-নৃগোষ্টীর নিজস্ব সংস্কৃতি তুলে ধরায় এই আয়োজন।
কারাম উৎসবটি উরাওঁদের বছরের সবচেয়ে বড় পর্ব হিসাবে বিবেচিত। কারাম উৎসবটি ভাদ্র (সেপ্টেম্বর-অক্টোবর) মাসের একাদশী দিনে করা হয়ে থাকে। এ উৎসবটি সাধারণত যখন পৃথিবীতে মৌসুমি বায়ু চরমে থাকে এবং ধানের গাছগুলো মাঠে দাঁড়িয়ে থাকে ও ধানের গাছ কান পর্যন্ত বড় হয় নি এ সময় করা হয়ে থাকে। এ উৎসবটি মূলত ধান কাটার আগে এবং অবসর সময়ে “প্রচুর ফসল উৎপাদনক্ষম উৎসব” ও শস্য মাঠে দাঁড়ানোর শক্তি যোগানোর জন্য করা হয়ে থাকে। কারাম প্রধানত ৩(তিন) ধরনের করা হয়। (১) জিতিয়া কারাম যা ব্যক্তিগত পর্যায় করা হয়, (২) দাশ কারাম যা গ্রামের সকলে মিলিতভাবে উদযাপন করে থাকেন এবং (৩) রা-জি কারাম বা রাইজ কারাম যা এলাকার সকলের সমন্বয়ে করা হয়ে থাকে। এ ছাড়াও কারামে গ্রামবাসী গ্রামের যুবক-যুবতীদের সুসন্তান লাভের জন্যও প্রার্থনা করা হয়। কারাম উৎসবের প্রধান অনুষ্ঠানটি কারাম গাছের তিনটি ডাল কেটে গ্রাম্য আখড়ার মাঝখানে কারাম রাজা হিসাবে গ্রামের নারীদের দ্বারা পোতা হয়। ডালের চতুর্দিকে বসে কারামের কাহিনী শোনা হয়। এরপর গ্রামের ছেলে-মেয়েরা কারাম রাজার চর্তুদিকে সারা রাত ধরে নাচে। পরের দিন সকালে যুবতী মেয়েরা বিশেষভাবে গোজানো জাওয়া পুঁপ তাদের ভাই ও আত্মীয়-সজনদের মাঝে বিতরণ করে। সকালের সুর্যের তাপ বাড়ার সাথে সাথে পাহান কারাম ডালগুলো তুলে কাছাকাছি পুকুর বা নদীতে সম্মানের সাথে ভাসিয়ে দেয় এবং পারিবারিক ভোজে অংশগ্রহণ করে। ঐতিহাসিকগণের বর্ননায় জানা যায় যে, বহুদিন পূর্বে পাটনার রোহিতাসগড় হতে আর্যদের দ্বারা যুদ্ধে পরাজিত হয়ে উরাওঁরা প্রাণ রক্ষার্থে তাদের আশ্রয়স্থান ত্যাগ করে পালাতে থাকে এবং আর্যরা তাদের পিছু ধাওয়া করতে থাকে। অনেকদূর আসার পর ক্লান্ত উরাওঁরা একটি কারাম গাছের নীচে আশ্রয় গ্রহণ করলে আশ্চর্যজনকভাবে আর্যরা ফিরে যায় এবং উরাওঁরা বিপদমূক্ত হয়। উরাওদের বিশ্বাস এ কারাম বৃক্ষ উরাওঁদের রক্ষা করেছে। এ বিশ্বাস থেকেই সেদিন উরাওঁরা কারাম বৃক্ষের উপাসনা শুরু করে এবং উরাওঁরা এ স্মৃতি স্মরন করে মর্যাদাসহকারে এ উৎসবটি পালন করে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email