শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘মোখলেস ভাই’র দশ বছর

‘মাস্ক ছাড়া উপায় নাই
বলেছেন মোখলেস ভাই’
‘টিকা ছাড়া উপায় নাই
বলেছেন মোখলেস ভাই’

দিনাজপুর জেলা শহরের রাস্তায় রাস্তায় এমনই স্লোগানযুক্ত পোস্টার বা দেয়াল চিত্র চোখে পড়ে।
স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন জাগে- কে এই মোখলেস ভাই?
তিনি কি কোনো জনপ্রতিনিধি?
তিনি কি কোনো সেলিব্রেটি?
খোঁজ নিতেই জানা গেল চমকপ্রদ সব তথ্য।
মোখলেস ভাই-এর পরিচয়
আজব চরিত্র মোখলেস ভাই। মেসে থাকেন। আদু ভাই। ‘সর্বজ্ঞানী’ এই বড়ভাই মেসের সবার সমস্যার সমাধান দিতে পারেন। বিশেষত হৃদয়ঘটিত সমস্যা সমাধানে তিনি খুবই পারদর্শী- এটা তার দাবি। বিনিময়ে তাকে কোনো হোটেলে পেটপুরে খাওয়াতে হবে। খেলে নাকি তার বুদ্ধি বাড়ে।
তার বুদ্ধিতে চলতে গিয়ে ঘটে মজার মজার সব ঘটনা।
খসরু-মোখলেস ভাই এর সার্বক্ষণিক সঙ্গী। বোকাসোকা। নিতু-খসরুর বান্ধবী।
মোখলেস ভাই, খসরু, নিতু এই ত্রয়ীকে ঘিরে রয়েছে আরো কিছু চরিত্র- ইমন, সুদেব, কাওসার, রোহিত। এই পর্যন্ত পড়ার পর পাঠক নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন- মোখলেস ভাই একটি ফিকশনাল চরিত্র। একটি বইয়ের চরিত্রকে দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে মানুষকে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজটি করে চলেছে ফিউশন নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এটি দিনাজপুর সরকারি কলেজের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রছাত্রীদের দ্বারা পরিচালিত হয়। বৃক্ষরোপণ, রক্তদান কর্মসূচি, গরীব ছাত্রছাত্রীদের বৃত্তি প্রদানসহ ক্যাম্পাসভিত্তিক নানান সামাজিক কর্মসূচি পালন করে থাকে । করোনাকালে মাস্ক বিতরণ ও ফ্রি করোনার টিকার রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম হাতে নেয় সংগঠনটি। তখনই সংগঠনের সভাপতি জুয়েল রহমান করোনা বিষয়ক প্রচারণায় ব্যতিক্রমী প্রচারনার অংশ হিসেবে মোখলেস ভাই চরিত্রটি ব্যবহারের প্রস্তাব করেন। তার যুক্তি ছিল, মোখলেস ভাই যেমন মানুষের উপকার করতে ভালোবাসেন, ফিউশনের প্রতিটি সদস্যই সেভাবে মানুষের উপকার করতে চান।
সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাবটি গৃহিত হওয়ার পর লেখকের অনুমতি নেওয়া হয়। অনুমতি পাওয়ার পর ‘মোখলেস ভাই’কে নিয়ে করোনা বিষয়ক প্রচারণায় নেমে পড়ে সদস্যরা।
‘মাস্ক ছাড়া উপায় নেই বলেছেন মোখলেস ভাই’ শ্লোগান শীর্ষক লিফলেট পোস্টার ব্যানার, দেয়াল চিত্র লিখনসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারনায় নেমে পড়ে সংগঠনের সদস্যরা। ব্যতিক্রমী প্রচারণার ফলে দ্রুত জনপ্রিয়তা পান ‘মোখলেস ভাই’ আর তার শ্লোগান।
দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে কোলকাতা, কুঁচবিহারসহ দেশের বাইরের কোন কোন নাগরিকের ফেসবুক প্রোফাইলে স্থান পায় শ্লোগানটি।
শুরু যেভাবে
২০০৮ সালের ৮ মার্চ মোখলেস ভাইকে নিয়ে লেখা প্রথম রম্য গল্প ‘সানগ্লাস বৃত্তান্ত’ প্রকাশিত হয় দৈনিক প্রথম আলোর ফান ম্যাগাজিন ‘আলপিন’ এ।
গল্পটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাওয়ার পর লেখক একই চরিত্র নিয়ে পরপর কয়েকটি রম্যগল্প লিখে ফেলেন। পাঠিয়ে দেন মাসিক রহস্য পত্রিকায়।সেখানে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হলে গল্পগুলি বেশ জনপ্রিয় হয়। ২০১২ সালে অবসর প্রকাশনা সংস্থা থেকে মোখলেস ভাই উপাখ্যান বইটি প্রকাশিত হয়।বইটির প্রচ্ছদ করেন হালের জনপ্রিয় আঁকিয়ে আরাফাত করিম।
ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় বইটি। এরপর দৈনিক কালের কণ্ঠ, সমকাল, ইত্তেফাক, সকালের খবরসহ বিভিন্ন পত্রিকার ফান ম্যাগাজিনে ‘মোখলেস ভাই’কে নিয়ে লেখা আরো গল্প প্রকাশিত হয়। চরিত্রটির জনপ্রিয়তার কারণে প্রতিবছর একটি করে মোখলেস ভাই উপাখ্যান সিরিজের বই প্রকাশিত হতে থাকে। এখন পর্যন্ত ‘মোখলেস ভাই’কে নিয়ে ৮টি বই প্রকাশিত হয়েছে। বইগুলি হলো যথাক্রমে মোখলেস ভাই উপাখ্যান,মোখলেস ভাই উপাখ্যান-২,মোখলেস ভাই উপাখ্যান-৩,ধরাশায়ী মোখলেস ভাই,পালাও মোখলেস ,এবং মোখলেস ,আনলাকি মোখলেস ভাই,ফিরে এলো মোখলেস ভাই।
এ বছর প্রকাশিত হবে এ সিরিজের নবম বই- গপ্পোবাজ মোখলেস ভাই ।
সাহিত্যে রম্য চরিত্র
টেনিদা, ঘনাদা, হর্ষবর্ধন প্রমুখ রম্য চরিত্র নিয়ে লেখা বই পাঠকদের কাছে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের একটি রম্য চরিত্র গত দশ বছর ধরে পাঠকদের বিনোদন দিয়ে যাচ্ছে- এমনটা খুব কমই দেখা যায়। এমন নয় যে, সমসাময়িক লেখকরা কোন রম্যচরিত্র দাঁড় করানোর চেষ্টা করেননি। করেছেন। কিন্তু রম্য চরিত্রকে সামাজিক জনসচেতনতা কর্মসূচিতে ব্যবহার করার ঘটনা দেশে এই প্রথম।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মোখলেস ভাই উপাখ্যান’ লিখে সার্চ করলেই ব্যাপারটা বোঝা যাবে।
নেপথ্যে কে?
একটি রম্য চরিত্র নিয়ে দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে লিখে যাওয়া চাট্টিখানি কথা নয়। মজার ব্যাপার হচ্ছে- ‘মোখলেস ভাই’কে মানুষ যতটা চেনে এর নির্মাণকারী লেখককে কমই চেনে। তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা। পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের মত কঠিন সাবজেক্টের সহকারী অধ্যাপক। তিনি ফুলবাড়ি জিএম স্কুল থেকে ১৯৮৭ তে এসএসসি পাস করেন। পরে তিনি দিনাজপুর সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন।
২৪তম বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে তিনি সরকারি চাকরি জীবনে প্রবেশ করেন।বর্তমানে দিনাজপুর সরকারি কলেজে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে সহকারী অধ্যাপক পদে কর্মরত।তাঁর নাম বিশ্বজিৎ দাস। মোখলেস ভাই উপাখ্যান সিরিজের ৮টি বই ছাড়াও তিনি আরো ১৭টি বই লিখেছেন। তার প্রকাশিত অন্যান্য গ্রন্থগুলি হলো- সময় (গল্পগ্রন্থ), শার্লক হোমসের বিয়ে (রম্য), রবু নামের রোবটটি (সাইফাই), আনলিমিটেড হাসি (রম্য), গ্যাঁড়াকল (রম্য), ভেজাল হাসি (রম্য), ভালোবাসার গল্প (ছোটগল্প), বিজ্ঞানী নাবিল আহমেদের আজব যত কাণ্ড (সাইফাই),তুরাশ (সাইফাই),বাক্সভরা হাসির গল্প(রম্য),বাঘবিড়াল(সাইফাই),ভুতুড়ে ট্রেন(ভূতের গল্প),এক গুচ্ছ হাসির গল্প(রম্য),মাসুদ রানা যখন গোল আলু (রম্য),রুম্পা জিনিয়াস(কিশোর উপন্যাস),হাসির গল্প সমগ্র-১(সংকলন),গুলটুস(সাইফাই),উচ্চ মাধ্যমিক পদার্থবিজ্ঞান ১ম ও ২য় পত্র(যৌথভাবে) ইত্যাদি।
প্রথম টিভি নাটক আজ মিলনের বেলা।
ইমেইল- নফলরঃ৮@মসধরষ.পড়স.
ওয়েব সাইট-িি.িনরংযধিলরঃফধং.পড়স
বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় রম্যগল্প, সায়েন্স ফিকশন, ছোটগল্প, উপন্যাস প্রভৃতি লিখে চলেছেন নিয়মিত। দৈনিক কালের কণ্ঠ-এর শুভসংঘ, দৈনিক সমকাল-এর পাঠক সংগঠন সুহৃদ সমাবেশ, দিনাজপুর জেলা কমিটির তিনি একজন উপদেষ্টা। নিজের সৃষ্ট চরিত্র সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘মোখলেস ভাই পরোপকারী। দয়ালু। তার চরিত্রের মানবিক গুণাবলি পাঠক পছন্দ করেছেন।’
মোখলেস ভাই তার গল্পের মাধ্যমে নিয়মিত পাঠককে সচেতন করে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

লেখক- গোলাম আজম রানা। প্রভাষক (পদার্থবিজ্ঞান) আমেনা-বাকী রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, চিরিরবন্দর, দিনাজপুর। মোবাইল : ০১৭৪০৪৫২৬২৫

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email